যুল-কারনাইন (পর্ব -4) || রাহে সুন্নাত ব্লগ || Rahe Sunnat Blog

Blog (ব্লগ) ইসলাম প্রতিদিন ইসলামী ইতিহাস

What is the real name of dul-karnain?

Various descriptions of what Zul-Karnain’s real name was. Az-Zubair bin Bakker bin Abbas Razi , That his name is’Abdullah ibn Jahhak ibn Ma’ad. According to some of the narrations, Musab bin Abdullah bin Qin bin Ibn’Abdullah bin’Abdullah bin’Abd binAbd bin Nabat ibn Malik bin Zaid bin Kaahlan Ibn Saba Ibn Kahtan According to a hadith narrating that Dhul-Karnaine was of the Himan tribe. His mother was a Roman native. Being keen knowledge, Dul-karnain was called Ibn al Failosuf. A poem from the tribe of the Hamirites writes about the glory of his ancestral man Dhul-Karnain-

قد كان ذو القرنين جدى مسلما ** ملكا تدين له الملوك وتحشد

بلغ المشارق والمغارب يبتغى ** اسباب امر من حكيم مرشد

فراى مغيب الشمس عند غروب ** فى عين ذى خلب وثأط حرمد

من بعده بلقيس كانت عمتى ** ملكتهم حتى اتاها الهدهد

Money – Dhul-Karnain was my grandfather, a Muslim and such a king. Other princes acknowledged him and surrendered to him. After the operation, he conducted the operation and reached the east-west end of the world, and the knowledgeable guide was searched for the way. In the west, on the sun’s ocean, there was a muddy duration of the sun going into the lake. After that came Samrajni Bilikis. He was my puff. He inherited the vast kingdom. ‘He led the state with great enthusiasm till the arrival of the hulkud bird of Sulaiman. Suhaili wrote, some have called his name Marubuddin Ibn Marzuba Ibn Hisham mentioned this. But he wrote the name of Zul-Karnain elsewhere: As-Sa’b bin Jesus-Maraid. The first king of the Tubba tribe was the first. In the case of Birus Saba, he was Abraham He gave the judgment on behalf of it.

Will run …….

যুল-কারনাইন এর আসল নাম কি?

যুল-কারনাইন এর আসল নাম কি ছিল সে ব্যাপারে বিভিন্ন  রকম বর্ণনা পাওয়া যায়। যুবাইর ইবন বাককার ইবনে আব্বাস রাযি. থেকে বর্ণনা করেন যে, তাঁর নাম আবদুল্লাহ ইবনে যাহহাক ইবন মাআদ। কারও বর্ণনা মতে, মুসআব ইবনে আবদুল্লাহ ইবনে কিনান ইবনে মানসূর ইবনে আবদুল্লাহ ইবনে আযদ ইবনে আওন ইবনে নাবাত ইবনে মালিক ইবনে যায়দ ইবনে কাহলান ইবনে সাবা ইবনে কাহতান। একটি হাদীসের বর্ণনায় আছে যে, যুল-কারনাইন হিময়ান গোত্রভুক্ত ছিলেন। তাঁর মা ছিলেন রোম দেশীয়। প্রখর জ্ঞানের অধিকারী হওয়ায় যুল-কারনাইনকে ইবনুল ফায়লাসুফ বা মহাবিজ্ঞানী বলা হত। হিময়ার গোত্রের জনৈক কবি তাদের পুর্ব-পুরুষ যুল-কারনাইন এর প্রশংসায় নিম্ন রূপ গৌরবগাঁথা লিখেন-
قد كان ذو القرنين جدى مسلما ** ملكا تدين له الملوك وتحشد
بلغ المشارق والمغارب يبتغى ** اسباب امر من حكيم مرشد
فراى مغيب الشمس عند غروب ** فى عين ذى خلب وثأط حرمد

من بعده بلقيس كانت عمتى** ملكتهم حتى اتاها الهدهد

অর্থ- যুল-কারনাইন ছিলেন আমার পিতামহ, মুসলমান ও এমন এক বাদশাহ। অন্যান্য রাজন্যবর্গ তাঁর বশ্যতা স্বীকার করে ও তাঁর নিকট আত্মসমর্পন করেন। তিনি অভিযানের পর অভিযান পরিচালনা করে পৃথিবীর পূর্ব পশ্চিম প্রান্ত পর্যন্ত পৌছেন এবং মহাজ্ঞনী পথপ্রদর্শক আল্লাহর প্রদত্ত উপায়-উপরণ অনুসন্ধান করেন। পশ্চিমে সূর্যের অস্তাচলে গিয়ে সেখানে সূর্যকে এক কর্দমাক্ত কাল জলাশয়ে অস্ত যেতে দেখেন। তার পরে আসেন সম্রাজ্ঞী বিলকীস। তিনি ছিলেন আমার ফুফু। বিশাল রাজ্যের অধিকারী হন তিনি। ‘সুলাইমানের হুদহুদ পাখীর আগমন পর্যন্ত তিনি অত্যন্ত প্রতাপের সাথে রাজ্য পরিচালনা করেন। সুহাইলী লিখেছেন, কেউ কেউ তাঁর নাম বলেছেন মারযুবান ইবনে মারযুবা। ইবনে  হিশাম এ কথা উল্লেখ করেছেন। তবে তিনি অন্যত্র যুল-কারনাইন এর নাম লিখেছেন : আস-সা‘ব ইবনে যী-মারাইদ। তুববা বংশের ইনিই প্রথম বাদশাহ। বীরুস্ সাবার ঘটনায় তিনি ইবরাহীম আ. এর পক্ষে ফয়সালা দিয়েছিলেন। 
চলবে…….

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *