তাসাউফ ও আধ্যাত্মিক সাধনার আদব

তাসাওউফ ও আধ্যাত্মিক সাধনার আদব

তাসাওউফ ও আধ্যাত্মিক সাধনার আদব দ্বীনের জন্যে আদব একটি মৌলিক বিষয়। আদব যে পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে সে অনুপাতে মানুষের দ্বীনদারীর হেফাযত হবে, মানব জীবনে সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে। আর যে পরিমাণ বেআদবী গোস্তাখী পাপকর্মের প্রতি নিভীর্কতা ও উদাসীনতা থাকবে, মানুষ দ্বীন হতে সে পরিমাণ বঞ্চিত ও সম্পর্কহীন হতে থাকবে। ইলম, আমল, ইসলাহে নফস ইত্যাদি সর্ব বিষয়ে […]

Continue Reading
তাওবার নামায

তাওবার নামায, সালাতুত তাওবা

তাওবার নামায শয়তানের প্ররোচনায় অথবা প্রবৃত্তির তাড়নায় কেউ যদি কোন গুনাহ করে ফেলে তাহলে সাথে সাথে ওযু করে দুই রাকা‘আত নামায আদায় করে কাকুতি—মিনতি করে আল্লাহ তা‘আলার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা ও তাওবা করা উচিত। এতে আল্লাহ তা‘আলা তার গুনাহ মাফ করে দিবেন এবং গুনাহের ক্ষতি থেকে তাকে হেফাযত করবেন। এই নামাযকেই তাওবার নামায বলা হয়। […]

Continue Reading
দ্বীনী মাদরাসার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিগণের কর্মনীতি

দ্বীনী মাদরাসার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিগণের কর্মনীতি

দ্বীনী মাদরাসার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিগণের কর্মনীতি পৃথিবীর বুকে দ্বীন ও ধর্ম টিকিয়ে রাখার জন্য মাদরাসার অস্তিত্ব জরুরী। কিন্তু মাদরাসা দ্বারা তখনই দ্বীন রক্ষার খেদমত আশা করা যাবে, যখন মাদরাসার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলে সহীহ উসূল অনুযায়ী চলবে এবং মাদরাসাও সহীহ উসূল মোতাবেক পরিচালিত হবে। অন্যথায় না দ্বীনের হেফাজত হবে আর না নিজেদের উন্নতি সাধন হবে; বরং সময় […]

Continue Reading
আল্লাহওয়ালা

আল্লাহওয়ালা বুযূর্গানে দ্বীনের সোহবত

আল্লাহওয়ালা বুযূর্গানে দ্বীনের সোহবত ইলম ও আখলাক বা জ্ঞান ও উন্নত চরিত্র লাভের সর্বোত্তম পন্থা হলো নেক সোহবত। আহলুল্লাহ ও বুযূর্গানে দ্বীনের খেদমতে অবস্থান করে তাদের যবানী নসীহত শ্রবণ করলে হৃদয়ের অন্তস্থলে প্রবেশ করে। তাদের সোহবতের বরকতে স্বভাব—চরিত্র, আমল—আখলাক সুন্দর হবে। যতক্ষণ পর্যন্ত মুমিনের অন্তরে তাকওয়া সৃষ্টি না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত দ্বীনের উপর পূর্ণ আমলকারী […]

Continue Reading
আহকামে তাবলীগের অনুসরনে

আহকামে তাবলীগের অনুসরণে দাওয়াতী মেহনত করতে হবে

আহকামে তাবলীগের অনুসরণে দাওয়াতী মেহনত করতে হবে বর্তমানে মাশাআল্লাহ দ্বীনী প্রতিষ্ঠান, দ্বীনী মেহনতের পরিমাণ আগের তুলনায় অনেক বেশি হচ্ছে। কিন্তু প্রকৃত অর্থে আমাদের অবস্থার সংশোধন, দ্বীনী উন্নতি সে তুলনায় কতটুকুু হচ্ছে? উম্মতের প্রকৃত চিকিৎসক নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কী কী রোগ সাব্যস্ত করেছেন এবং সেসব রোগের জন্য কী চিকিৎসা বাতলে দিয়েছেন? সে অনুযায়ী কতটুকু আমল […]

Continue Reading
সৎ কাজের আদেশ

সৎ কাজের আদেশ এবং অসৎ কাজে নিষেধ না করলে শাস্তি অনিবার্য

সৎ কাজের আদেশ এবং অসৎ কাজে নিষেধ না করলে শাস্তি অনিবার্য প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একদিন ওয়াজ করেন এবং মুসলমানদের কয়েকটি জামা‘আতের প্রশংসা করেন। অত:পর বলেন- “ওই সব লোকের কী অবস্থা যারা নিজেদের প্রতিবেশীদেরকে দ্বীনের কথা বুঝায় না, দ্বীন শিখায় না, উপদেশও দেয় না, সৎ কাজেরও আদেশ করে না, অসৎ কাজেও বাধা দেয় না! আর […]

Continue Reading
চারটি কাজ মুসলমানের জিম্মায়

চারটি কাজ প্রতিটি মুসলমানের জিম্মায়

চারটি কাজ প্রতিটি মুসলমানের জিম্মায় সুরা আসরের মূলনীতির আলোকে১. আল্লাহ তা‘আলার আদিষ্ট বিষয়সমূহ যথাযথভাবে আদায় করা অর্থাৎ, সকল কাজে সর্বদা সুন্নাতের অনুসরণ করা। ২. সকল প্রকার গুনাহের কাজ থেকে পাবন্দির সাথে বেঁচে থাকা। ৩. আমল বিল মারুফ অর্থাৎ, ভালো কাজের প্রচার প্রসার করা। ৪. নাহী আনিল মুনকার অর্থাৎ, গুনাহের কাজ প্রতিরোধে সর্বাত্মক চেষ্টা করা। বলাবাহুল্য, […]

Continue Reading
ঈমান

ঈমান । রাহে সুন্নাত ব্লগ। আবু তাসনীম উমাইর

ঈমান ঈমান শব্দের আভিধানিক অর্থ বিশ্বাস করা, স্বীকার করা, ভরসা করা ও নিরাপত্তা প্রদান করা ইত্যাদি। ধাতুগত অর্থে ঈমান হলো ধমীর্য় আকীদা বা বিশ্বাস, আর ইসলাম ধমীর্য় আমল ও কাজকর্মকে বুঝায়। ঈমানের বিশেষণে ‘মুমিন’ এবং ইসলামের বিশেষণে ‘মুসলিম’ বা মুসলমান ব্যবহৃত হয়। কিন্তু প্রয়োগ ও ব্যবহারের ক্ষেত্রে একটির জায়গায় আরেকটি ব্যবহৃত হয়ে থাকে। যেমনÑ ঈমান […]

Continue Reading
ঈমান শুধু গ্রহন নয়

ঈমান শুধু গ্রহণ নয়, বর্জনও, সত্যকে গ্রহণ আর বাতিলকে বর্জন

ঈমান শুধু গ্রহণ নয়, বর্জনও, সত্যকে গ্রহণ আর বাতিলকে বর্জন কোনো আকীদাকে মেনে নেয়ার পাশাপাশি তার বিপরীত বিষয়কেও সঠিক মনে করা স্ববিরোধিতা। মানবের সুস্থ বুদ্ধি তা গ্রহণ করতে পারে না। ইসলামেও তা অগ্রহণীয়। ঈমান তখনই সাব্যস্ত হবে যখন বিপরীত সব কিছু বাতিল ও মিথ্যা মনে করবে এবং তা থেকে সম্পর্ক ছিন্ন করবে। সকল প্রকারের শিরক […]

Continue Reading
ঈমান ইসলামের জন্য কৃতজ্ঞতা আদায় করা

ঈমান ইসলামের জন্য কৃতজ্ঞতা আদায় করা

ঈমান ইসলামের জন্য কৃতজ্ঞতা আদায় করা নেয়ামতে ঈমান ও নেয়ামতে ইসলাম এ মহা দৌলত না চাইতেই আল্লাহ তা‘আলা আমাকে দান করেছেন। তিনি আমাদেরকে মুসলমান বানিয়েছেন, ঈমান ও ইসলাম দান করেছেন। মুসলমানের ঘরে জন্ম দিয়েছেন। আরো অসংখ্য নেয়ামত দান করেছেন। আল্লাহ তা‘আলা ইরশাদ করেন- وَإِنْ تَعُدُّوْا نِعْمَةَ اللهِ لَا تُحْصُوْهَا إِنَّ اللهَ لَغَفُوْرٌ رَحِيْمٌ. অর্থ : […]

Continue Reading